Breaking News
Home / জাতীয় / একুশে’র বই মেলায় কমলগঞ্জের স্কুল শিক্ষিকার স্বরচিত একগুচ্ছ কবিতা দিয়ে একটি “স্মৃতির কাব্য”” নামে একক গ্রন্থ থাকছে

একুশে’র বই মেলায় কমলগঞ্জের স্কুল শিক্ষিকার স্বরচিত একগুচ্ছ কবিতা দিয়ে একটি “স্মৃতির কাব্য”” নামে একক গ্রন্থ থাকছে

কবি পরিচিতিঃ মনোয়ারা পারভীন।
শাহজালালের পূন্যভূমি সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার পৃথিমপাশা ইউনিয়নের আলীনগর গ্রামে মুসলিম সম্ভ্রান্ত এক মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন।তার পিতা ক্বারী শেখ মোঃচেরাগ আলী,মাতা শেখ সুমিতা ভানুর কোল আলো করে আসেন এবং পরম যত্নে লালিত পালিত হয়েছেন।
তিনি পেশায় একজন শিক্ষক।তার শিক্ষাগত যোগ্যতাঃবিএসএস/ সিইনএড।
২০০২ সালে তিনি মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার পতনউষার ইউনিয়নের টিকরপাড়া গ্রামের সৈয়দ মো. আব্দুর রাজ্জাক এর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।
বর্তমানে তিনি পতনউষার বালক সপ্রাবি তে সহকারী শিক্ষক পদে কর্মরত আছেন।তিনি বরাবর মুক্ত,স্বাধীন ও উদার মনের মানুষ।ছোট বেলা থেকেই ভাবুক হৃদয়ের মানুষ।ছোট, বড় দেশের বিভিন্ন সাহিত্য সাময়িকী ও পত্র- পত্রিকা,ম্যাগাজিনে নিয়মিত লেখালেখি করেন।তিনি একাধারে গল্প,ছোট গল্প,ছড়া,গান,গজল,কবিতা লিখে বেশ কিছু সম্মাননা পেয়েছেন।তিনি ইতিমধ্যে সাহিত্য জগতে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন।এবার সম্পাদকের সারিতে ও নাম লিখিয়েছেন” আমার স্বাধীনতা” যৌথকাব্য সম্পাদনার মাধ্যমে।তাঁর প্রকাশিত যৌথ কাব্য গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে,” নবীনের জয়গান,” হৃদপটে কাব্যকথন”, রিটার্ন”, স্মৃতির পাতায় পাকনেত্র”,” জনক তোমার ছায়ায় বাংলাদেশ “ও ” আমার স্বাধীনতা”নামক গ্রন্থগুলো।
তিনি একজন সাহিত্যপ্রেমী ও প্রকৃতিপ্রেমী মানুষ।গরিব,দুঃখী,অভাবি,দুঃস্থ মানুষের জন্য তাঁর হৃদয়ে ব্যাকুলতার অন্ত নেই।তিনি খুব সাধারন জীবন যাপন করতে দেখা যায়।সমাজে সব মানুষের পাশে থাকতে ভালোবাসেন।তিনি সর্বদা মানব সেবায় নিয়োজিত থাকতে পছন্দ করেন। সেই সাথে দেশ বিদেশে ঘুরে বেড়ানোর শখ দেখতে পাওয়া যায়।

কবির কথা,জন্মে বড় নয়,কর্মে বড় হও।সবার আগে মানুষ হও।একজন বিশুদ্ধ মানুষ রূপে নিজেকে তৈরি করুন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Check Also

কমলগঞ্জে পুজামন্ডপ পরিদর্শণে ভারতীয় সহকারি হাই কমিশনার-কমলগঞ্জ বার্তা

আমিনুল ইসলাম হিমেল ॥ কমলগঞ্জ উপজেলায় শারদীয় দুর্গোৎসবে হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত মইদাইল সার্বজনীন পুজামন্ডপ পরিদর্শণ কালে ...