Breaking News
Home / কমলগঞ্জ / কমলগঞ্জে ভুয়া ডাক্তার ও সহযোগী আটক , মালামাল জব্দ

কমলগঞ্জে ভুয়া ডাক্তার ও সহযোগী আটক , মালামাল জব্দ

আমিনুল ইসলাম হিমেল॥

 কমলগঞ্জে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে সহযোগীসহ এক ভূয়া ডাক্তারকে আটক করা হয়েছে। জব্দ করা হয়েছে চিকিৎসার সরঞ্জাম ও অনুমোদনবিহীন ঔষধ। কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ মাহমুদুল হকের নেতৃত্বে গত সোমবার (২৫ জুন) সন্ধ্যা ৬ টায় কমলগঞ্জ পৌরসভার ভানুগাছ বাজারের গ্রামের বাড়ী চাইনিজ রেস্টুরেন্ট এন্ড হোটেলের ৩য় তলার একটি কক্ষ থেকে চিকিৎসা দেওয়া অবস্থায় সহযোগীসহ এক ভুয়া ডাক্তারকে আটক করা হয়। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার কার্যালয়ে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্টেট মোহাম্মদ মাহমুদুল হক তাৎক্ষনিক ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের আদালত বসিয়ে ভূঁয়া ডাক্তর ও তার সহযোগীকে নগদ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের কারাদন্ড দিয়েছেন এবং তাদের কাছে থাকা চিকিৎসার সকল মালামাল জব্দ করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ভানুগাছ বাজার চৌমুহনী এলাকায় গ্রামের বাড়ী হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্টের তৃতীয় তলার একটি কক্ষে মানুষদের ভূঁয়া চিকিৎসা সেবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ মাহমুদুল হকের নেতৃত্বে কমলগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক মো. ফরিদ মিয়া সহ পুলিশের একটি দল হোটেলের কক্ষে অভিযান চালান। এসময় চিকিৎসা দেওয়া অবস্থায় তাদের বৈধ ডাক্তারীর কাগজ পত্র দেখাতে পারেননি  রংপুর জেলা সদরের নীলকন্ঠ এলাকার সাইদুল ইসলামের পুত্র ভূঁয়া ডাক্তার আসাদুজ্জামান (৪২)। পরে চিকিৎসা সেবা দেয়ার কোন প্রমাণপত্র না পাওয়ায় সহযোগী আব্দুল কাইয়ুম (৩৫)সহ তাদেরকে আটক করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে রাত সাড়ে ৮ টায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন অনুযায়ী ডিগ্রী ছাড়া ডাক্তার হিসেবে চিকিৎসা দেওয়ার অপরাধে আসাদুজ্জামান (৪২) ও তার সহযোগী কমলগঞ্জ উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের চিৎলিয়া গ্রামের আরমান আলীর পুত্র আব্দুল কাইয়ুম (৩৫)-কে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়, অনাদায়ে ৩ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। তাদের কাছ থেকে জব্দ করা হয়েছে ৫ কার্টুন ভেজাল ঔষধ, ১টি ল্যাপটপ, ১টি হিউম্যান হেলথ ডিজিট প্রেটিকশন সিস্টেম (ফুড সাপ্লিম্যান্ট) মেশিন, ১টি ডাক্তারী পরিচয়পত্র, ভিজিটিং কার্ডসহ শরীর মাপার বিভিন্ন সরাঞ্জাম। পরে সকল ভেজাল ঔষধসহ তাদেরকে থানায় পোপর্দ করা হয়।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট  মোহাম্মদ মাহমুদুল হক ভূঁয়া ডাক্তার আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, চিকিৎসার নাম করে সাধারণ মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে এসব ভূঁয়া ডাক্তাররা। অভিযোগ পাওয়া গেলেই ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। তিনি উপজেলা নাগরিকদের ভূঁয়া ডাক্তারদের খপ্পড় থেকে সতর্ক থাকার জন্য অনুরোধ করেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Check Also

কমলগঞ্জ উপজেলা পুষ্টি সমন্বয় কমিটির দ্বি-মাসিক সভা অনুষ্ঠিত- কমলগঞ্জ বার্তা

রাফি আহমেদ রিপন , কমলগঞ্জ ।। খাদ্যের কথা ভাবলে, পুষ্টির কথা ভাবুন’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে ...