Breaking News
Home / আলোচিত খবর / কমলগঞ্জ পৌর নির্বাচনে ত্রি-মুখি সংঘর্ষে আওয়ামীলীগ, ব্যাতিক্রম বিএনপি-কমলগঞ্জ বার্তা

কমলগঞ্জ পৌর নির্বাচনে ত্রি-মুখি সংঘর্ষে আওয়ামীলীগ, ব্যাতিক্রম বিএনপি-কমলগঞ্জ বার্তা

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ পৌর নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধী বিএনপির সঙ্গে লড়াইয়ে আওয়ামী লীগ বেকায়দায় আছে দলের বিদ্রুহী দুজন প্রর্থীর কারনে। দলীয় প্রার্থীকে না মেনে ক্ষমতাসীন দলের দুই জন নারকেল গাছ ও জগ প্রতীক নিয়ে ভোটের লড়াইয়ে মাঠে সরব আছেন। সরকারি দলে বিভক্তির কারনে ফায়দা নিতে চান বিএনপি প্রর্থী মো. আবুল হোসেন। ধানের শীষ প্রতীকে নিয়ে তিনি পুনরূদ্ধারের আশা করছেন। ১৯৯৯ সালে পৌরসভা গঠনের পর থেকে এখানে ৩বার নির্বাচন হয়েছে। এর একটি উপনির্বাচন। দুইবার জিতেছে বিএনপি, একবার আওয়ামী লীগ এবং একবার স্বতন্ত্র প্রার্থী। প্রথম নির্বাচনে জেতেন নির্দলীয় প্রার্থী মুহিবুর রহমান চাষী (চেরাগ মিয়া)। এক বছর পর তিনি মারা গেলে উপনির্বাচনে জয়ী হন বিএনপি নেতা হাসিন আফরোজ চৌধুরী। দ্বিতীয় নির্বাচনেও জয়ী হন বিএনপির প্রার্থী আবু ইব্রাহিম জমশেদ। তৃতীয় নির্বাচনে জয়ী হয় আওয়ামী লীগের প্রর্থী ও বর্তমান মেয়র জুয়েল আহমেদ। যাকে এবারও আওয়ামীলীগ তাদের দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন করেছে। নির্বাচনকে কেন্দ্রে করে কমলগঞ্জে আওয়ামী লীগ ত্রি-খন্ডে বিভক্ত হওয়ার কারনে অনেকটা ভারমুক্ত  মেজামে আছেন বিএনপি’র প্রার্থী।

অপরদিকে আওয়ামীলীগ প্রার্থী জুয়েল আহমেদ(নৌকা) প্রার্থীর বিপরীতে দলীয় দুই বিদ্রোহী প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। ইতিমধ্যে দুই বিদ্রোহীকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। অন্যদিকে আওয়ামীলীগে বিদ্রোহ থাকায় অনেকটা নির্ভার অবস্হানে আছেন বিএনপি প্রার্থী মো.আবুল হোসেন। তবে তাকে ঘিরেও বিএনপিতে দ্বন্ধ আছে। তবে ফুরফুরে মেজামে থাকলেও শান্তিতে নেই তিনিও। কারন দলের মধ্যে বিরোধের জন্য ফায়দা ঘরে তুলতে  কষ্ট পেতে হবে। নৌকা মার্কার প্রার্থী জুয়েল আহমেদ বলেন, ‘উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষার্থে এবারও নৌকার পক্ষে দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকরা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করছে। জয়ের ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী। গত নির্বাচনের আগে জনগণকে দেয়া প্রতিশ্রুতির ৮০ শতাংশ পূরণ হয়েছে দাবি করে জুয়েল বলেন, ১৯ বছরের জমে থাকা জঞ্জাল পাঁচ বছরে সমাধান করা সম্ভব নয়। এ কারণেই তিনি আরও একবার সুযোগ দিতে জনগণকে আহ্বান জানাচ্ছেন। ধানের শীষের প্রার্থী মো. আবুল হোসেন বলেন, ‘কমলগঞ্জ পৌরসভা বিএনপির শক্তিশালী ঘাঁটি। দলীয় ভেদাভেদ ভুলে সকল নেতাকর্মী ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করলে এবং সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বিএনপির বিজয়ী নিশ্চিত। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘ছাত্রজীবন থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নিয়ে রাজনীতি করছি। তিন বারের কাউন্সিলর ছিলাম। এ বছর দলীয় নেতাকর্মী ও সাধারণ ভোটাররা চেয়েছেন বলেই দল মনোনয়ন না দেয়াতে সতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করছি। সুষ্ঠ নির্বাচন হলে জয়ের ব্যাপারে আমি আশাবাদী। আওয়ামী লীগের আরেক বিদ্রোহী প্রার্থী মো. হেলাল মিয়া বলেন, পৌর এলাকার সর্বস্তরের জনগণের চাপে প্রার্থী হয়েছেন। দলমত নির্বিশেষে ভোটাররা আমাকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত করবে। কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও পৌর নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম তালুকদার জানান, নির্বাচনের পরিবেশ শান্তিপূর্ণ রয়েছে। ৩ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে কাজ করছেন। পৌরসভায় মোট ভোটার ১৩ হাজার ৯০৫ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ৬ হাজার ৯১১ জন, নারী ৬ হাজার ৯৯৪। সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩১ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১১ জন লড়াই করছেন। আগামী ১৬ জানুয়ারী  ভোট গ্রহণ অনুষ্টিত হবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Check Also

সিএনজি পাম্পের পাইপ বিষ্পোরণ ॥৩টি সিএনজি অটো ভষ্মীভূত-কমলগঞ্জ বার্তা

কমলগঞ্জ বার্তা ডেস্ক, রিপোর্ট ॥ শ্রীমঙ্গলের কালাপুরে একটি সিএনজি পাম্পের নজেল ফেঁটে অগ্নীকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। ...